,

ইনামতি স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর আনন্দ ভ্রমণ ও ঈদ আড্ডা

মোঃ জামিল আহমদঃ

সিলেট হতে প্রায় ৯০ কিলো: দূরবর্তী অঞ্চল জকিগঞ্জ। আর জকিগঞ্জের বারঠাকুরী নামক গ্রামে অবস্থিত বরাক মোহনা।বরাক নদী হতে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর উৎপত্তি।
মোহনার ওজানে রয়েছে আতঙ্কের আলোচিত টিপাইমুখ বাধ।মোহনার বাঁ পাশেই রয়েছে বৌদ্ধ সভ্যতার নিদর্শণ সমৃদ্ধ লুপ্তপ্রায় গায়েবী দীঘি।যে দীঘির সাথে রয়েছে নানা ধরণের কল্পকাহিনী।পূর্ব পুরুষদের কাছ হতে প্রাপ্ত সূত্রে এখানের অনেক কল্পকাহিনী আজো আমাদের মনে পড়ে। মোহনার কাছেই বারঠাকুরী গ্রামে উপমহাদেশের প্রখ্যাত আধ্যাত্তিক সাধক মরমী কবি শীতালং শাহর সমাধি।এ গ্রামেই জন্মগ্রহণ করেন বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের খতীব মরহুম মাওলানা উবায়দুল হক রহ :।
বরাক মোহনা বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের অন্যতম একটি সম্ভাবনাময় স্পট হিসেবে ঘোষনা করা সময়ের দাবী।গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় সংস্কৃতিমন্ত্রির সদয় দৃষ্টি আঁকষণ করছি।

উল্লেখ্য ঈদুল আজহার পরের দিন, ইনামতি স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর উদ্দ্যেগে প্রায় ২০ জনের একটি কাফেলা বিকেলবেলা ভ্রমণে গিয়েছিলেন বরাক মোহনায়। সাথে ছিলেন ঊঝঅ এর উপদেষ্টা অর্থনীতি প্রভাষক কাউসার আহমদ,উপদেষ্টা ও এম.আর মজুমদার স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র, ঊঝঅ এর প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও আল-মদিনা ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রিন্সিপাল মোঃ জামিল আহমদ,প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিসার জুবায়রুল হাসান,কবি ও ছড়াকার এবং সিলেট জালালাবাদ ইন্টা.আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক রোটারিয়ান মাজহারুল ইসলাম জয়নাল,সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ইংরেজী প্রভাষক হাসান আহমদ খান,আহবায়ক মাহবুবুর রহমান মুহিব,আহবায়ক কমিটির সদস্য সাদিক মনসুর, শিক্ষক মাশহুদ আহমদ সহ আরো অনেকেই।বরাক উপত্যকায় যাওয়ার পর আমাদের সাথে যুক্ত হন রোটারিয়ান ও সমাজকর্মী,ভ্যাট কমিশন কর্মকর্তা এম জাহেদ আহমদ,এম.আর মজুমদার স্কুলের সহকারী শিক্ষক জুনেদ আহমদ,আমাদের সাথে শেষের দিকে আরো যুক্ত হন সাংবাদিক এনামুল হক মুন্না সহ জেড,এস,সি এর আর ও অনেক সদস্য।

     এ জাতীয় আরো খবর