,

জকিগঞ্জের বেকারদের চোখে আশার আলো : চলছে এনএসপির প্রশিক্ষণ

ইলিয়াস আকরাম: `নেই কোন বিদেশী ফান্ড, ন্যাশনাল সার্ভিস শেখ হাসিনার ব্র্যান্ড’। এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের লক্ষে দেশে প্রথমবারের মতো চালু হয় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচি (এনএসপি)। ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচির আওতায় ২৪ থেকে ৩৫ বছর বয়সী, উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ বেকার যুবদের কর্মসংস্থানের লক্ষে ২ বছরের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে সংযুক্তি দেয়া হয়।

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচি ৫ম পর্ব সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় উদ্বোধন করা হয় চলতি বছরের ৬ সেপ্টেম্বর। পৌরসভাসহ উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নের ৮৩৬ জন যুবক ও যুব মহিলা প্রাথমিক বাছাইয়ে মনোনীত হন। এর মধ্যে ৪৪৯ জন যুবক ও ৩৮৭ জন যুব মহিলা। ইউনিয়ন ভিত্তিক সর্বাধিক মনোনীত মানিকপুর ইউনিয়ন থেকে ও সর্বনি¤œ বারহাল ইউনিয়ন থেকে। ৭ সেপ্টেম্বর থেকে উপজেলার ৫ টি ভ্যানুতে সকাল-বিকাল দুই শিফ্টে চলছে ৩ মাস ব্যাপি মৌলিক প্রশিক্ষণ।
জীবন দক্ষতা ভিত্তিক এ প্রশিক্ষণে বাংলাদেশ ও বাঙ্গালী জাতির ইতিহাস, দূর্যোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাপনা ও সমাজসেবা, মৌলিক কম্পিউটার, আত্মকর্মসংস্থান, সরকারী সেবা, স্বাস্থ্য ও পরিবারপরিকল্পনা, শিক্ষা ও শারিরিক শিক্ষা, কৃষি-বন ও পরিবেশ, জননিরাপত্তা ও আইন শৃংখলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের সেবা কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা দেয় হচ্ছে। বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত মাষ্টার ট্রেনার প্যানেল এ প্রশিক্ষণ পরিচালনা করছেন। এ কর্মসুচি বাস্তবায়নে সমন্বয়কারীর দায়িত্ব পালন করছেন উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আজহারুল কবীর ও সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা এনামুল হক সরকার। সিলেট বিভাগে প্রথমবারের মতো ৪র্থ পর্বে গোয়াইনঘাট ও কানাইঘাট উপজেলায় প্রশিক্ষণ শেষে ২ বছরের জন্য চুক্তিভিত্তিক কর্মসুচি চালু রয়েছে। বর্তমানে ৫ম পর্বে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলা ও মৌলভী বাজার’র জেলার জুড়ি উপজেলায় কর্মসুচির প্রশিক্ষণ প্রায় দেড় মাস অতিক্রান্ত হয়েছে।

চলমান কর্মসুচির ব্যাপারে উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আজহারুল কবীর বলেন ‘যুবরাই হচ্ছে একটি দেশের প্রাণ শক্তি। এ সত্য উপলব্ধি থেকেই যুব বান্ধব বর্তমান সরকার বেকার যুবদের ভাগ্য উন্নয়নের লক্ষে বিভিন্ন কর্মসুচি বাস্তবায়ন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগে ও রাজস্ব খাতের অর্থায়নে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচি বাস্তবায়িত হচ্ছে। কর্মসুচি শেষে ন্যাশনাল সার্ভিসের সাথে যুক্তদের উদ্যোক্তা হিসেবে আত্মগঠনের লক্ষ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ ও ঋণ সহায়তা দিয়ে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সর্বদা তাদের পাশে থাকবে। প্রশিক্ষক সহকারী অধ্যাপক আল মামুন বলেন, এ কর্মসূচি জকিগঞ্জের জন্য আশীর্বাদ স্বরুপ। স্কুল-কলেজসহ জকিগঞ্জের বিভিন্ন দপ্তরে তিন শতাধিক পদ শূণ্য রয়েছে। প্রশিক্ষণ প্রাপ্তরা সংযুক্তি পাবার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ অফিসপাড়ায় কাজের গতি আসবে।

সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা যায় প্রত্যেকটি ভ্যানুতে প্রশিক্ষণার্থীদের সরব উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। প্রশিক্ষণার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচির মৌলিক প্রশিক্ষণ তাদের অনেক জানার ও শেখার সুযোগ করে দিয়েছে। জকিগঞ্জ বালক উচ্চ বিদ্যালয় ১ নং ভ্যানুর প্রশিক্ষণার্থী ও বারঠাকুরী ইউনিয়ন থেকে মনোনীত যুব মহিলা আবিদা সুলতানা জানান ‘স্কুল-কলেজ থেকে যা শিখতে পারিনি অথচ জীবন চলার পথে যা প্রয়োজন তা এ প্রশিক্ষণ থেকে শিখতে পারছি। প্রত্যেকটি ক্লাশই ভাল লাগছে, বিশেষ করে যুব উন্নয়ন অফিসারের ইতিহাসের ক্লাশ আমার বেশ ভাল লেগেছে। স্যারের কথাগুলো শোনে ঐতিহাসিক ঘটনাবলী যেন চোখের সামনে ভেসে উঠে। যদি আমি ন্যাশনাল সার্ভিসে না আসতাম, তাহলে আমার জীবনে অনেক কিছুই শেখা বাকি রয়ে যেত।’ এছাড়া লুৎফুর রহমান স্কুল এন্ড কলেজ ভ্যানুর প্রশিক্ষণার্থী ও বারহাল ইউনিয়ন থেকে মনোনীত যুবক রাজু আহমেদ জানান ‘ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসুচির প্রশিক্ষণে এসে জীবনকে নতুনভাবে উপলব্ধি করছি। বেকারত্বের গ্লানি মুছে জীবনকে সাজাতে জেনেছি। উদ্যোক্তা হবার মন্ত্র পেয়েছি এখানে। দেশের উন্নয়নমূলক কাজে নিয়োজিত করতে উৎসাহও পেয়েছি।’

শুধু জকিগঞ্জ উপজেলায় কর্মসুচিটি বাস্তবায়ন করতে খরচ হবে প্রায় ১৫ কোটি টাকা। প্রশিক্ষণ চলাকালীন প্রত্যেককে দৈনিক ১’শ টাকা করে প্রশিক্ষণ ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। ৩ মাস মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন দপ্তরে সংযুক্তি দেয়া হবে। সংযুক্তির পর প্রত্যেককে দিন প্রতি ২’শ টাকা করে মাসে ৬ হাজার টাকা কর্মভাতা প্রদান করা হবে। ৬ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা ভবিষ্যৎ তহবিল হিসেবে নিজ ব্যাংক হিসাবে রেখে ভাউচারের মাধ্যমে ৪ হাজার টাকা উত্তোলন করতে পারবে। ৩ মাস প্রশিক্ষণ ও ২ বছরের কর্মের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ২ বছর পর এসব যুবক ও যুবমহিলাগণ নিজেদের ভাগ্য সাজাতে পারবে। ন্যাশনাল সার্ভিসের মাধ্যমে বেকারত্ব নামক অভিশাপ থেকে মুক্তি নিতে জকিগঞ্জের বেকার যুবদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে আশার আলো।

     এ জাতীয় আরো খবর