,

নারী শিক্ষার ব্যাপারে সচেতনতা প্রত্যাশা স্বর্ণপদক বিজয়ী জকিগঞ্জের খাদিজার

স্টাফ রাইটার::
সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্সে প্রথম স্থান অধিকার করে চ্যান্সেলর এওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স স্বর্ণ পদক পেয়েছেন জকিগঞ্জ পৌর এলাকার খলাছড়া গ্রামের মরহুম হাজী আব্দুস সামাদ ( সমই মিয়া) ও মাতা রোশনা বেগম এর কন্যা খাদিজা ইয়াসমিন মনি। ছোট বেলা থেকেই মেধাবী মনি জকিগঞ্জ কেজি গার্লস স্কুল, জকিগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের চ’ড়ান্ত পরীক্ষাগুলিতেও ঈর্ষণীয় সাফল্য পেয়েছেন।খাদিজা ইয়াসমিন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষি অনুষদে ২০১২সালে অনার্সে সর্বোচ্চ নিয়মিত ফলাফল ৩.৯৩ আউট অফ ৪.০০ পেয়ে প্রথম স্থান অধিকার করায় অর্জন করে ইউনিভার্সিটি এওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স।
মাস্টার্স পর্যায় ৩.৯৬ আউট অফ ৪.০০ স্থান অর্জন করায় সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মৃত্তিকা বিজ্ঞান থেকে “চ্যান্সেলর এওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স” (গোল্ড ম্যাডেল) অর্জন করেন। সম্প্রতি রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদের নিকট থেকে এ পদক গ্রহণ করে খাদিজা।
খাদিজা ইয়াসমিন জানান এ অর্জন আমাকে ব্যাপক উৎসাহিত করেছে। চ্যান্সেলার এওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স স্বর্ণ পদক ও ইউনিভার্সিটি এওয়ার্ড ফর এক্সিলেন্স(বুক এওয়ার্ড) দু’টি পদকের সফলতায় আমার মা-ভাই-বোন, স্বামীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আর আমার মরহুম বাবার অবদান ভুলবার নয়। খাদিজার স্বামী ড. মো.আল মামুন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিপার্টমেন্ট অব পেটোলজির সহকারী অধ্যাপক। তার বাবার জন্য দোয়া চেয়ে খাদিজা ইয়াসমিন মানবতার কল্যানে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। খাদিজা ভবিষ্যতে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতে আগ্রহী। তিনি নারী শিক্ষা প্রসারে অভিভাবক, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সুদৃষ্টি প্রত্যাশা করেন। খাদিজা ইয়াসমিনের চাচাতো ভাই মুনিম আহমদ জকিগঞ্জ নিউজ ব্লাড ডোনারস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও আব্দুল আহাদ ফ্রান্স প্রবাসী সংগঠক।

     এ জাতীয় আরো খবর