,

নিজেদের‌ই দোষারোপ করছেন তামিম

রেজা, স্পোর্টস রাইটার।

প্রতিপক্ষকে অল্প রানে গুটিয়েই যে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল, এমনটি নয়। উইন্ডিজের মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে টেস্ট জিততে তিনশ’রও বেশি রান তাড়া করা মুখের কথা নয়। তারপরও, ন্যুনতম প্রতিদ্বন্দ্বিতার ছাপও ছিল না বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে। এ যেন হারার আগেই হেরে যাওয়া!

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল কোনো অজুহাত দাঁড় করাতে চান না। দলের ব্যর্থতার জন্য তিনি দায়ী করছেন নিজেদেরই। সেই সাথে জানিয়েছেন নিজেদের ত্রুটিগুলোও।

ক্রিকেট বিষয়ক সংবাদমাধ্যম ইএসপিএনক্রিকইনফোকে তামিম বলেন, ‘আমাদের ব্যাটিং পাফরম্যান্স সামর্থ্য অনুযায়ীই হয়নি। আমরা ভিন্নধর্মী উইকেটে খেলেছি, তবে সেটা এমন বাজে পারফরম্যান্স হওয়ার মত নয়। বোলিং ভালো হচ্ছিল। তাই বলে এমন নয় যে কোনো ইনিংসেই আমরা ২০০ করতে পারব না। এমনকি এবারও, আমরা ৩৩০-৩৪০ এর জন্য খেলছিলাম না, কিন্তু উইকেট ব্যাট করার মত ছিল। আমরা প্রতিযোগিতায় আরও একটু টিকে থাকলে আকর্ষণীয় একটি ম্যাচ হতে পারত।’

চলতি বছর বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে নেই আগের ক্ষুরধার ভাব, ম্লান তামিমের ব্যাটিংও। এ যেন মনে করিয়ে দিচ্ছে ২০১৪ সালকে, যেবার সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বাজে সময় কাটিয়েছিল বাংলাদেশের ক্রিকেট। তামিমেরও মনে হয় তা-ই, ‘২০১৪ সালের পর আমার এমন অনুভূতি কখনও হয়নি। তাই আমার পারফরম্যান্স নিয়ে মানুষজন কীভাবে ভাবছেন সেটি এড়িয়ে চলা আমার জন্য কঠিন। তবে আমি জানি, আমার এমন বিষয়ের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়া উচিত।’

নিজের আউট হওয়া বলগুলো খেলা সহজ ছিল না মেনে নিলেও, তামিমের কণ্ঠে রইল আরও সাবধানী না হতে পারার আফসোস। তিনি বলেন, ‘নিজস্ব অভিমত থেকে বলব, আমি যে চারবার আউট হয়েছি তার তিনবারই ভালো বল ছিল। তবে এটাও বলতে হয়, আমার এগুলো ভিন্নভাবে মোকাবেলা করা উচিত ছিল। একজন সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে আমার কাছ থেকে মানুষ রান চায়।’

     এ জাতীয় আরো খবর