,

শাহ আব্দুল করিমের ১০২তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে কুয়েতে জমজমাট লোক উৎসব

কুয়েত থেকে মো. তাজ উদ্দিন::

এ যেন মরুর বুকে একখন্ড ছোট্র বাংলাদেশ। হাজার হাজার প্রবাসী বাংলাদেশীর উপস্থিতি। তিল ধারনের ঠাঁই নেই। সকলের মাঝে উৎসব মহাউৎসবের ভাব। উপস্থিত মানুষের দৃষ্টিতে এ যেন প্রবাসী বাংলাদেশীদের এক মহা মিলন মেলা,সব মিলিয়ে বলা চলে কুয়েতে এ যাবত কালের একটি সেরা অনুষ্ঠান উপহার দিলো কুয়েত’র বহুল পরিচিত ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন শাহ আব্দুল করিম স্মৃতি পরিষদ। পরিশ্রমী ক্লান্ত শ্রান্ত শ্রমজিবী আবদালীর প্রবাসী বাংলাদেশীদের আনন্দ বিনোদন হাসি খুশিতে কিছুটা সময় মত্ত রাখতে পেরে তৃপ্ততা বোধ করছেন অনুষ্ঠানের আয়োজক শাহ আব্দুল করিম স্মৃতি পরিষদ কুয়েত’র নেতৃবৃন্দ।

১৫ মার্চ ২০১৮ বৃহস্পতিবার কুয়েতস্থ ইরাক সীমান্তবর্তি এলাকা আবদালিতে সন্ধ্যা ৮ ঘটিকা হতে শুরু হয় উপমহাদেশের প্রখ্যাত বাউল সম্রাট ২১শে পদকপ্রাপ্ত মরমী কবি শাহ আব্দুল করিম’র ১০২তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে লোক “উৎসব অনুষ্ঠান ২০১৮”। চলে মধ্যরাত পর্যন্ত।
সংগঠনে সভাপতি ওলিদ মোঃ সেনুর সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক এস এম সুমনের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মান্যবর রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে যারা উপস্থিত ছিলেন বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জনাব শাহ সগিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিল আব্দুল লতিফ খান, দূতাবাসের ১ম সচিব (পাসপোর্ট) মোঃজহিরুল ইসলাম খান, শাহ আব্দুল করিম স্মৃতি পরিষদ কুয়েত’র প্রধান উপদেষ্টা বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী ও রাজনীতিবীদ আবুল হাসেম এনাম, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জাতীয় পার্টি কুয়েত’র সভাপতি, শাহ আব্দুল করিম স্মৃতি পরিষদ কুয়েত’র উপদেষ্টা মাহমুদ আলী হাজ্বী, সংগঠনে উপদেষ্টা বিশিষ্ট সংগঠক লুৎফুর রহমান লুদাই মিয়া, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সংগঠনের উপদেষ্টা বাবু মিহির কান্তি পাল, সংগঠনের উপদেষ্টা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রাজনিতিবীদ ও সংগঠক এম ডি আব্দুস সেলিম, কুয়েতস্থ সোনালী ব্যাংক প্রতিনিধি সাফওয়াত পাটোয়ারী, দূতাবাসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহরিয়ার শাহীন, আব্দুল মালেক, আব্দুল হালিম, আরও উপস্তিত ছিলেন সিলেট বিভাগীয় লেখক ফোরাম কুয়েত’র সভাপতি এ কে মাসুদ চৌধুরী, ওসমানি স্মৃতি পরিষদ কুয়েত’র সাধারন সম্পাদক মিজানুর রহমান, শাহ আব্দুল করিম স্মৃতি পরিষদ কুয়েত’র সিনিয়র সহ সভাপতি সুলাইমান আহমদ, সহ সভাপতি সেলিম মিয়া, সহ সভাপতি সাইফুল ডানা, আক্তারুজ্জামান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক খছরু আহমদ, সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ তাজ উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক এম ডি রাজ্জাক, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান আহমেদ হাছান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়ছল আহমদ ফজল, অর্থ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন শামীম, সহ অর্থ সম্পাদক সম্পাদক আব্দুল মুকিদ খাঁ, দপ্তর সম্পাদক প্রজিত পাল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিজানুর রহমান, সহ সাংস্কৃতিক সম্পাদক শেখ জাকারিয়া, সমাজকল্যাণ সম্পাদক আনিসুর রহমান, সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক আনছার আলী, সহ সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক তাজ উদ্দিন,মহিলা ও শিশু বিষয়ক সম্পাদিকা শুভ্রা পাল, সহ মহিলা ও শিশু সম্পাদিকা সিতা রানী দেব, সদস্য মৌলানা আব্দুল আহাদ, ইউসুফ মিয়া ও কামাল মিয়া,সেলিম মিয়া বাছিত আহমদ,এছাড়াও বাংলাদেশ দূতাবাস কুয়েত’র সর্বস্তরের কর্মকর্তা কর্মচারি বৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক -সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনে নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা আব্দুল আহাদ। অনুষ্ঠান সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন আবদালীর প্রবাসী বাংলাদেশীরা। অনুষ্ঠানের ১ম পর্বে কুয়েত এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত, মহান মুক্তিযুদ্ধ সহ বাংলাদেশের সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনের আত্মদানকারি সকল শহিদদের প্রতি ১মিনিট দাড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন, বাউল সম্রাটের ১০২তম জন্ম বার্ষিকীর কেক আনুষ্ঠনিকভাবে কেটে জন্মদিন উদযাপন এবং সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের বক্তব্য এবং মান্যবর রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের পর শুরু হয় অনুষ্ঠানের ২য় পর্ব।এর আগে আবদালি প্রবাসী বাংলাদেশীরা মান্যবর রাষ্ট্রদূতের কাছে তাদের বিভিন্ন দাবী দাওয়া তুলে ধরেন মান্যবর রাষ্ট্রদূত তাদের যৌক্তিক দাবীগুলো পুরনের আশ্বাস প্রদান করেন। অনুষ্ঠানের ২য় পর্বে শুরু হয় জমকালো এবং মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠানে বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের গান সহ বাংলাদেশের বাউল জারি- সারি ভাটিয়ালী -ভাওয়াইয়া মুর্শিদী –পল্লীগীতি-জালালি -দেশাত্ববোধক গান এবং জনপ্রিয় নৃত্য শিল্পী ওয়ার্দী পালের মনোমুগ্ধকর নৃত্য এবং যাদুকরের যাদু, পরিবেশন করে মাতিয়ে রাখেন উপস্তিত দর্শকদের। সর্বশেষে রাতের আপ্যায়নের মধ্যদিয়ে সমাপ্তি ঘটে এই মিলন মেলার।

 

     এ জাতীয় আরো খবর