,

সিলেট-৫ আসনে বিএনপির মনোনয়ন চাইবেন শরীফ আহমদ লস্কর

স্টাফ রাইটার::
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঘোষিত দেশের ৩০০ নির্বাচনী আসনে ৯০০ প্রার্থীর প্রাথমিক একটি তালিকা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এ অবস্থায় সিলেট বিভাগের চারটি জেলার ১৯টি আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় স্থান পেয়েছেন ৫৭ নেতা। এ তালিকার বাইরেও দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন অনেকে।
এ আসনে জকিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সহসভাপতি মানবাধিকার সংগঠক শরীফ আহমদ লস্কর এবার দলের কাছে মনোনয়ন চাইবেন বলে জকিগঞ্জ নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন।
শরীফ লস্কর বলেন, গত নির্বাচনেই আমার মনোনয়ন চাওয়ার কথা ছিল। বিএনপি সেই নির্বাচন বর্জন করেছিল। আমি শ্রম, সময় ও অর্থ দিয়ে দেশে-বিদেশে দলের নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে ভ’মিকা রেখেছি। নিউ ইয়র্ক স্ট্রেট বিএনপির সভাপতি ও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সহসভাপতি ছিলাম।
এবার নেতাকর্মীরা আমাকে মনোনয়ন চাওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছেন। দল আমাকে ধানের শীষ প্রতীক দিলে আমি নির্বাচন করবো। অন্য কাউকে দল অধিক যোগ্য মনে করলে যাকে মনোনয়ন দিবে আমি তার পক্ষেই আমি কাজ করবো।
শরীফ লস্কর বলেন, আমার বাবা আব্দুল মান্নান(আকল মিয়া),বড় ভাই গোলাম কিবরিয়া ও চাচাত ভাই আলতাফ লস্কর কসকনকপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। ছোট বেলা থেকেই মানুষের সেবা করার মানসিকতা পরিবার থেকে শিখেছি। স্যোসাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, আমেরিকা নামের সংগঠনের মাধ্যমে নানা সামাজিক ও মানবিক কাজ করছি। বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস কমিশন ইউএসর প্রেসিডেন্ট ও গভর্ণর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। ইচ্ছা রয়েছে সুযোগ পেলে পিছিয়ে থাকা জকিগঞ্জ-কানাইঘাটবাসীর জন্য কাজ করবো।
তিনি বলেন ইছামতি স্কুলে পড়ার সময় ১৯৭৯ সালে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেজা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেয়ার মাধ্যমে বিএনপির রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট হই। পরবর্তীতে সিলেট মদনমোহন কলেজে পড়ার সময়ও ছাত্রদলের সাথে জড়িত ছিলাম। ১৯৮৮ আমেরিকাতে চলে আসার পর লেখাপড়া, ব্যবসা ও রাজনীতি তিনটাতেই সময় দিয়েছি। ‘ম্যান পাওয়ার ক্যাটারিং সাপ্লাই’এর মাধ্যমে অনেককে কাজের সুযোগ দিয়েছি। আমার ‘গ্রান্ড লিমো এন্ড কার সার্ভিস কোম্পানী’তে অনেক লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। কসকনকপুরে হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা প্রতিষ্ঠা করেছি। ভবিষ্যতে কালীগঞ্জ এলাকায় একটি নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও একটি হাসপাতাল করার ইচ্ছা রয়েছে।
আমি জকিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে ৬ বছর দায়িত্ব পালন করেছি। কোনো দিন কারো সাথে আমার কোনো সমস্যা হয়নি। গত উপজেলা নির্বাচনে জকিগঞ্জের ইকবাল আহমদ ও কানাইঘাটের আশিক চৌধুরীর পক্ষে কাজ করেছি। আশা করি দল আমাকে মূল্যায়ন করবে।
জকিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর শাহ চৌধুরী হেলাল বলেন, শরীফ লস্কর একজন সমাজসেবী, শিক্ষিত প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও নিষ্ঠাবান রাজনীতিবিদ। তিনি মনোনয়ন পেলে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে তার পক্ষে কাজ করবো।
জকিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও উপজেলা কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক কবির আহমদ মেম্বার বলেন, এ আসনে ধানের শীষের যোগ্য প্রার্থী নেই। শরীফ লস্কর একজন কিè ইমেজের রাজনীতিবিদ। তার কোনো হিংসাতœক মনোভাব নেই। অত্যন্ত ভালো মানুষ। তিনি প্রার্থী হলে শুধু দলীয় নেতাকর্মী নয় সাধারণ মানুষেরও সমর্থন পাবেন তিনি।

     এ জাতীয় আরো খবর