,

সিলেট বিভাগের সর্বোচ্চ পূজামন্ডপ জকিগঞ্জে


স্টাফ রাইটার
সিলেট বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ ১০৫টি দুর্গা মন্ডপ জকিগঞ্জ উপজেলায়। এসব মন্ডপ ঘিরে চলছে ব্যাপক প্রন্তুুতি। ইতিমধ্যে শারদীয় দুর্গোৎসব যথাযথভাবে উদ্যাপনের লক্ষ্যে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদর নেতৃবৃন্দের সাথে একাধিক বৈঠক করেছেন।
এবার উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় সার্বজনীনভাবে ১০১টি মন্ডপে ও পারিবারিকভাবে ৪টি মন্ডপে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে। সরকারের পক্ষ থেকে  প্রতি মন্ডপে ৫০০ কেজি চাল বরাদ্দ করা হয়েছে। গত বছর জকিগঞ্জে ৮৪টি মন্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হয়েছিল।
জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম খান বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে পূজা উদ্যাপনের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে সভা হয়েছে। এবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পূজামন্ডপে পুলিশ ও আনসার মোতায়েন করা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুমী আক্তার বলেন, ‘৯০টি পূজামন্ডপে জন্য বরাদ্দ রয়েছে। পরে আরও তালিকা পেয়েছি। শারদীয় দুর্গোৎসবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য মন্ডপগুলোতে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে। পুলিশের পাশাপাশি আনসারও দেওয়া হবে বিভিন্ন পূজামন্ডপে।’
বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ জকিগঞ্জের সভাপতি সঞ্জয় চন্দ্র নাথ ও সাধারণ সম্পাদক সুজন দে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘প্রতিবছরের ন্যায় এবারও শান্তিপূর্ণভাবে শারদীয় দুর্গোৎসব উদ্যাপন হবে। তবে করোনায় এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ উদযাপন করা হবে। এ জন্য প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতাসহ সবার সহযোগিতা কামনা করছি।’
সঞ্জয় চন্দ্র নাথ আরও বলেন, গত শুক্রবার ছয়লেন পালপাড়ায় শ্রীমন গৌরাঙ্গ মহাপ্রভুর মন্দিরে দুর্গোৎসব পালনের  লক্ষ্যে সভা হয়েছে। সভায় শালীনতার মধ্য দিয়ে শাস্ত্রমতে পূজা উদযাপন, সব মন্দিরে নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক ও ব্যাজ ধারণ, রাতে সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ বা জেনারেটরের ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্ত হয়। ১৫ অক্টোবর সন্ধ্যার মধ্যে কাস্টম ঘাটে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে পূজা সমাপ্তি হবে।

     এ জাতীয় আরো খবর